অবশেষে দুর্ভোগ লাঘব হচ্ছে পাইলট স্কুল মার্কেটে বরাদ্দপ্রাপ্তদের

অবশেষে দুর্ভোগ লাঘব হচ্ছে পাইলট স্কুল মার্কেটে বরাদ্দপ্রাপ্তদের

August 9, 2020 888 By মিরসরাই খবর

নিজস্ব প্রতিবেদক::
মার্কেটে দোকান ঘর বরাদ্ধ পেতে কেউবা তিল তিল করে জমানো সঞ্চয়ের টাকা, কেউ ধার কর্জ করে আর কেউবা সম্বল বিক্রির টাকা তুলে দিয়েছিলেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের হাতে। অথচ দীর্ঘ ৫ বছর পেরিয়ে গেলেও নানা টাল বাহানায় দোকান ঘর বুঝিয়ে দিচ্ছিলো না মিরসরাই পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। অভিযোগ উঠেছিলো দোকান ঘর বরাদ্দে অনিয়ম ও ঘুষ বানিজ্যে জড়িয়ে পড়েছিলেন তৎকালীন বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদ।
ভুক্তভোগীরা বছরের পর বছর অনুনয় বিনয় ও তাগাদা দেয়ার পরও মিরসরাই সরকারী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মহিউদ্দিন কোন ব্যবস্থাই গ্রহন করেননি। এভাবে কেটে যায় ৫টি বছর। অবশেষে দোকান ঘর বুঝে পেতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন এর শরণাপন্ন হন ভুক্তভোগীরা। রবিবার (৯ আগষ্ট) এ বিষয়ে সরেজমিনে পরিদর্শনে যান ইউএনও রুহুল আমিন। এসময় তিনি দোকানঘর বরাদ্দ প্রদান, বকেয়া ভাড়া আদায় সহ বিভিন্ন বিষয়ে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা দেন।
এ ব্যাপারে দোকানঘর বরাদ্দের আবেদনকারী ও মিরসরাই উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ আলতাফ হোসেন জানান, ২০১৬ সালে দোকান ঘর পাওয়ার জন্য সব ধরনের নিয়ম মেনে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ৩,৫০০০০টাকা দিয়েছিলাম। দোকান ঘর বুঝে পেতে এগ্রিমেন্টও স্বাক্ষর করেছিলো স্কুল কর্তৃপক্ষ। অথচ ৪ বছর পেরিয়ে গেলেও নানা টাল বাহানা ও আইনি জটিলতার কথা বলে দোকান বুঝিয়ে দেয়া হয়নি। এব্যাপারে আমি গত জানুয়ারি মাসে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি অভিযোগ দিয়েছিলাম। আজ ইউএনও মহোদয় পরিদর্শন এসে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়ায় আশার আলো দেখতে পাচ্ছি।
পরিদর্শন শেষে বিকেলে ইউএনও রুহুল আমিন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও ভুক্তভোগীদের নিয়ে বৈঠক করেন।
বৈঠকে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়, যারা দোকানঘর পাওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন এবং ইতিপূর্বে এগ্রিমেন্ট স্বাক্ষর হয়েছিলো তাদেরকে আগামী রোববার (১৬ আগষ্ট) থেকে দোকান ঘর বুঝিয়ে দেয়া হবে। এছাড়াও বর্তমানে যে সকল ব্যবসায়ীর নিকট ভাড়া বকেয়া রয়েছে তাদের নিকট থেকে বকেয়া ভাড়া আদায়ের লক্ষ্যে আগামীকাল সোমবার ব্যবসায়ীদের সাথে বৈঠকে বসতে প্রধান শিক্ষক মো. মহিউদ্দিনকে নির্দেশ দেন। মার্কেটের ভিতরের হাটার পথ পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা, হাটা চলার পথে কোন মালামাল না রাখা সহ বিভিন্ন সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়।
এসময় উপস্থিত ছিলেন মিরসরাই প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক শারফুদ্দীন কাশ্মীর, উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ আলতাফ হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগ সদস্য আনোয়ার হোসেন সুজন, মিরসরাই পৌরবাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক মেজবাউল আলম, মো. মোরশেদ, মিরসরাই সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মহিউদ্দিন, শিক্ষক হোসাইন সবুজ ও দিদারুল আলম প্রমুখ।

mAD
mAD